টপ পোষ্ট

এক নজরে দেখেনিন রাশিয়া বিশ্বকাপের সব রেকর্ড সমূহ !!

0

এক কথায় আপনি চাইলে রাশিয়া বিশ্বকাপকে রেকর্ড ভাঙার বিশ্বকাপও বলতে পারেন। আসুন দেখে নেই রেকর্ড বইয়ের কোন পাতায় কী পরিবর্তন এল।

পেনাল্টিঃ টাইব্রেকারের ছাড়া এবার ম্যাচের নির্ধারিত সময়ে ১৬ জন খেলোয়াড় পেনাল্টি থেকে ২১টি গোল পেয়েছেন। এর সঙ্গে যোগ হতে পারত আরো বেশ কয়েকটি পেনাল্টি। যদি না পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, আইসল্যান্ডের গিলফি সিগুর্ডসন ও ক্রোয়েশিয়ার লুকা মদ্রিচ ও আর্জেন্টিনার লিওনেল মেসির নাম। একটি করে পেনাল্টি মিস করেই সুযোগটা হারিয়েছেন তাঁরা। এক বিশ্বকাপে এর আগে পেনাল্টি থেকে সর্বোচ্চ ১৭টি গোল হয়েছিল ১৯৯৮ সালে।

 

সেট পিসঃ এবারের বিশ্বকাপ থেকে সেট পিস থেকেও রেকর্ড সংখ্যক গোল হয়েছে। ফাইনাল পর্যন্ত ১৬৯ গোলের ৭১ টিরই উৎস যে সেট পিস। শতকরা হিসাবে মোট গোলের যা ৪৪ ভাগ। ২০০২ বিশ্বকাপ থেকে ফিফা সেট পিসের হিসাব রাখা শুরু করে। এরপর এবারই সেট পিসে সবচেয়ে বেশি গোল এসেছে। এবারের আগে ২০০৬ বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ৪৬টি গোল এসেছিল সেট পিস থেকে।

শেষ মুহূর্তের গোলঃ এবার শেষ মুহূর্তের গোলেরও রেকর্ড হয়েছে। শেষ পাঁচ মিনিটে হয়েছে ২৯টি গোল। যার ১৯টিই যোগ করা সময়ে। আগের রেকর্ডটি ১৯৯৮ সালের ফ্রান্স বিশ্বকাপের। সেবার শেষ পাঁচ মিনিটে গোল হয়েছিল ২৪ টি।

 

আত্মঘাতী গোলঃ এবারের আগে এক বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ৬টি আত্মঘাতী গোল দেখেছিল ১৯৯৮ বিশ্বকাপ। এবার সেমিফাইনাল পর্যন্ত সংখ্যাটা কিনা ১১!

সবচেয়ে কম লাল কার্ডঃ এটাকে রেকর্ড না বললেও চলে। এবারের বিশ্বকাপে মাত্র ৪টি লাল কার্ড দেখিয়েছে রেফারিরা। এর জন্য ভিএআর দায়ী। সংখ্যাটা ১৯৭৮ বিশ্বকাপের পর সর্বনিম্নও। সর্বশেষ ১৯৭০ বিশ্বকাপে কোনো লাল কার্ড বা বহিষ্কারের ঘটনা দেখেনি বিশ্বকাপ। হলুদ কার্ড দেখানোয় অবশ্য কৃপণতা দেখাচ্ছেন না রেফারিরা। ২১৬ বার হলুদ কার্ড বের করেছেন রেফারিরা, সংখ্যাটা ২০১৪ বিশ্বকাপের চেয়ে ৩৫টি বেশি।

 

টাইব্রেকারঃ এবারের বিশ্বকাপে রেকর্ড চারটি ম্যাচ গড়িয়েছে টাইব্রেকারে। ১৯৯০, ২০০৬ ও ২০১৪ বিশ্বকাপেও চারটি করে ম্যাচ টাইব্রেকারে গড়িয়েছিল। সেই সঙ্গে এক বিশ্বকাপে দুটি টাইব্রেকার জেতার রেকর্ডও ছুঁয়েছে ক্রোয়েশিয়া। ১৯৯০ বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠার পথে দুবার টাইব্রেকার-বাধা পেরিয়েছিল আর্জেন্টিনা।

শেয়ার করুণ

আপনার মন্তব্য দিন