টপ পোষ্ট

শ্বশুর বাড়ীতে প্রবাসী জামাইকে নির্মম ভাবে খুন ! বিস্তারিত…

0

কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলায় শুশুর বাড়িতে বেড়াতে এসে জামাই খুন হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসা বাদের জন্য স্ত্রী ফরিদা বেগম ও শ্বশুর তছলিম উদ্দিনকে আটক করেছে মুরাদনগর থানা পুলিশ। রবিবার রাতে উপজেলার নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়নের চৌধুরীকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জামাই দেবিদ্বার উপজেলার খলিলপুর গ্রামের মুতু মিয়ার ছেলে মানিক মিয়া (৩৫)। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মুরাদনগর-কোম্পানীগঞ্জ সড়কের চৌধুরীকান্দি গ্রামের আজাদি কর্ণার তোরনের পাশের সড়কে পড়ে থাকে মানিক।

রাত ১১টায় স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে তাকে মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত্যু ঘোষনা করে। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রের করে।

 

জানা যায়, প্রায় ১৫ বছর পূর্বে মানিক মুরাদনগর উপজেলার চৌধুরীকান্দি গ্রামের তছলিম উদ্দিনের মেয়ে ফরিদা বেগমের সাথে বিয়ে হয়। তাদের বিবাহিত সংসার জীবনে এক ছেলে এক মেয়ে জন্ম নেয়। সন্তানদের ভবিষৎ চিন্তা করে মানিক এক বছর পূর্বে মালদ্বীপে যায়। সেখান থেকেই মানিক স্ত্রীর ব্যাংক একাউন্টে টাকা পাঠাতেন।

সেই টাকা দিয়ে শুশুর বাড়ি এলাকায় জমি কিনার জন্য তার স্ত্রী তাকে চাপ সৃষ্টি করলে এক পর্যায়ে মানিকের নামে জমি রেজিস্ট্রি করার শর্তে রাজি হয়। পরে স্ত্রী ফরিদা বেগম তার স্বামীর নামে রেজিস্ট্রি না করে নিজের নামেই করে নেন। এই খবর পেয়ে মানিক দেশে ফিরে এসে স্ত্রীর কাছ থেকে নিজের নামে জমি লিখে নেন। এই থেকেই তাদের সংসারে কলহ সৃষ্টি হয়।

 

এই সূত্রে গত বছরের আগস্ট মাসে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন তাকে বেদরক পিটিয়ে আহত করলে সেই থেকে সে তার স্ত্রী সন্তান ও শ্বশুর বাড়ির লোকজনের সাথে যোগাযোগ ছিন্ন করেন মানিক। তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন জমিটি দখল করেছে শুনে মানিক আবার স্ত্রীর সাথে যোগাযোগ করলে তার স্ত্রী তাকে শ্বশুর বাড়িতে আসতে বললে গত রবিবার রাতে চৌধুরীকান্দি শশুর বাড়িতে আসে মানিক।

 

নিহতের বড় ভাই মামুন অভিযোগ করে বলেন, রবিবার রাতে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে যায় মানিক। সোমবার সকাল ১০টার দিকে মানিকের শ্বশুর বাড়ির স্থানীয় মেম্বার মোস্তফা জানায় আমার ভাই বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে। আমার ভাই বিষ খাওয়ার কোন কারণই আমরা দেখছি না। তাকে তার শ^শুর বাড়ির লোকজন মেরে মুখে বিষ ঢেলে দিয়েছে। এর আগেও তারা তাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করেছে। আমরা এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি গ্রহন করছি।

 

নিহত মানিকের শালক ইকরামের স্ত্রী বলেন, গত ছয় মাস মানিক আমাদের সাথে যোগাযোগ করেন না। আজ সকালে (সোমবার) শুনলাম মানিক বিষ খেয়ে আমাদের এলাকায় পরে থাকলে স্থানীয় লোকজন তাকে হাসপাতালে নিলে ওখানে চিকিৎসাদিন সে মারা যায়।

 

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) অরজুন মিয়া জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্ত্রী ফরিদা ও শ্বশুর তছলিম উদ্দিনকে আটক করা হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। তদন্ত করে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুণ

আপনার মন্তব্য দিন